1. news@www.banglaroitizzo.com : BanglarOitizzo :
  2. imrankhanbsl01@gmail.com : Imran Khan : Imran Khan
  3. banglaroitizzo.news@gmail.com : newseditor :
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
নলছিটিতে সেচ্ছেসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ফ্রি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিক নিবন্ধন সেবা নওগাঁয় জেলা রোভারের আয়োজনে গ্রুপ সভাপতি ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত। বরিশালে অসহায় মানুষের মাঝে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন লাভ ফর ফ্রেন্ডসের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরন সম্পন্ন রাজাপুরে দুই বছরেও পুর্নঃ নির্মান হয়নি ভাঙ্গা কালভার্ট, দুর্ভোগ এলাকাবাসীর অসুস্থ মাহিদ ভূঁইয়াকে দেখতে হাসপাতালে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতারা “ঘরের বাইরে গেলে বদ্দা মাস্ক পরিও, নাকে মুখে হনকিয়ায় হাত ন দিও” স্লোগান নিয়ে রোভারদের মাস্ক বিতরণ জমি বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-৩ কালিয়ায় ১৪৪ ধারা অমান্য করে বিরোধ পূর্ন জমিতে বসত ঘর নির্মাণের চেষ্টা রাজাপুরে আমির হোসেন আমু এমপির মাতার ৪৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মোনাজাত শাজাহানপুরে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করায় ম্যানেজার আটক

আজব নেশা; শুধু কেরোসিনের গন্ধ শুঁকে বেঁচে আছে বিশ্বনাথের আব্দুর রহিম!

সমুজ আহমদ সায়মন, বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ৩১৬৭ বার পড়া হয়েছে
আব্দুর রহিম
ফাইল ছবি

জন্মের পর থেকে যখন নিজের বোধ শক্তি জাগ্রত হয় তখন থেকে শুধু কেরোসিনের গন্ধ শুঁকে প্রায় ৩৩ বছর ধরে বেঁচে আছে বিশ্বনাথের আব্দুর রহিম। কেরোসিনের গন্ধ প্রতি ১০/১৫ মিনিট পর পর না নিলে অজ্ঞান হয়ে পড়ে আব্দুর রহিম। তাই কেরোসিন ভর্তি একটি ড্রাম তার জীবনের নিত্যসাথী। কিছুক্ষণ পর পর সাথে থাকা ড্রামটির মুখে মুখ লাগিয়ে গন্ধ শুঁকতে হয় তাকে। নতুবা তার সকল কাজকর্ম থেমে থাকে।কেরোসিনের গন্ধ আবার তাকে ফিরে দেয় অন্য দশজনের মতো স্বাভাবিক জীবনে।

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চি ইউনিয়নের আমের গাঁও গ্রামের মৃত ছিদ্দিক আলীর ৩য় ছেলে ৩৭/৩৮ বছরের আব্দুর রহিম। তার বোধশক্তি হওয়ার পর একদিন সে কেরোসিনের গন্ধ শুঁকে এবং সেদিন থেকে কেরোসিনের গন্ধের প্রতি তার আকর্ষণ বেড়ে যায়।সেই থেকে কেরোসিনের গন্ধ শুঁকা তার নেশায় পরিনত হয়। বর্তমানে কেরোসিন ভর্তি একটি ড্রাম তার সাথে থাকে সব সময়। হাটে- মাঠে কাজকর্মে, আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে বেড়াতে গেলে এমনকি ঘুমাতে গেলেও তার পাশে থাকে ড্রামটি সযত্নে। এ ব্যাপারে মা ভাই বোন বন্ধু বান্ধব আত্মীয় স্বজন অনেক প্রকার বাধা প্রদান করেছেন প্রথম প্রথম। বর্তমানে এখন আর কেউ তাকে বাধা দেন না। কেরোসিন গন্ধবিহীন অবস্থায় সে প্রায় পাগল হয়ে যায়।

এ বিচিত্র নেশা থেকে পরিত্রাণের ব্যাকুল আকুতি রয়েছে আব্দুর রহিমের। পরিবারের আর্থিক অস্বচ্ছলতা থাকার কারণে সে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছেনা। তার আক্ষেপ একটাই, কবে সে এই বিচিত্র নেশা থেকে মুক্তি পাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

নিউজ ক্যাটাগরি

UDOY ADD
©দৈনিক বাংলার ঐতিহ্য (2019-2020)
Theme Customized BY LatestNews