1. news@www.banglaroitizzo.com : BanglarOitizzo :
  2. imrankhanbsl01@gmail.com : Imran Khan : Imran Khan
  3. banglaroitizzo.news@gmail.com : newseditor :
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বিলুপ্তির দ্বারপ্রান্তে বিশ্বনাথের ‘রাজ- রাজেশ্বরী” মন্দির রাজ একা নন, বলিউডের আড়ালে পর্ন ছবি বানাতেন এই অভিনেত্রীও ঝালকাঠিতে ঈদের দিনে ফ্রি অক্সিজেন সেবা দেয়ার মধ্য দিয়ে ঈদ উদযাপন নলছিটিতে সেচ্ছেসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ফ্রি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিক নিবন্ধন সেবা নওগাঁয় জেলা রোভারের আয়োজনে গ্রুপ সভাপতি ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত। বরিশালে অসহায় মানুষের মাঝে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন লাভ ফর ফ্রেন্ডসের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরন সম্পন্ন রাজাপুরে দুই বছরেও পুর্নঃ নির্মান হয়নি ভাঙ্গা কালভার্ট, দুর্ভোগ এলাকাবাসীর অসুস্থ মাহিদ ভূঁইয়াকে দেখতে হাসপাতালে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতারা “ঘরের বাইরে গেলে বদ্দা মাস্ক পরিও, নাকে মুখে হনকিয়ায় হাত ন দিও” স্লোগান নিয়ে রোভারদের মাস্ক বিতরণ জমি বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-৩

জাহাজমারা সমুদ্র সৈকত

রাঙ্গাবালী প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ৭ মে, ২০২১
  • ৭৮১ বার পড়া হয়েছে
জাহাজমারা
ছবি : বাংলার ঐতিহ্য

নামটা শুনে আচমকাই মনে হবে এখানে মনে হয় জাহাজ মারা হয়।আসলে সেরকম কিছু না আবার উল্টো টা ও নয়। তবে শুনা যায় এখানে অনেক আগে একটি আমেরিকান জাহাজ দিক হারিয়ে বালুর সাথে আটকে গেছিলো এবং আটকে যাওয়া জাহাজের সকল ক্রু এবং নাবিকদের স্থানীয় লোকেরা উদ্ধার করে। এরই পরিপেক্ষিতে মৌডুতে আমেরিকান লোকেরা একটি এনজিও (এসসিআই) প্রতিষ্ঠান করেন। এরপর ধীরে ধীরে আটকে যাওয়া জাহাজটা ঐ খানেই বালুর সাথে মিশে গেছে । সেই থেকেই এর নাম হয়ে গেছে জাহাজমারা। এটাই নামকরণের জন্য দায়ী। আজ আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি জাহাজমারা সমুদ্র সৈকতের সাথে। অজানা গল্প মনে হলেও এটা দিবালোকের মতো সত্য।

সাগরকন্যা খ্যাত পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে জাহাজমারা সমুদ্র সৈকত অবস্থিত। দিন দিন এখানে পর্যটকদের আনাগোনা বেড়েই চলেছে।

প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সমুদ্র সৈকতের যে-কোনো জায়গায় দাঁড়িয়ে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখার অপার সুযোগ। নিজ চোখে না দেখলে এ যেনো রূপকথার গল্প মনেহবে। এখানে গেলে হাজার হাজার জেলের মাছ ধরার দৃশ্য মনকেড়ে নেয়। কম খরচে সাগর থেকে তুলে আনা টাটকা মাছের স্বাদও নেওয়া যাবে। দূর থেকে সমুদ্রসৈকতের বিচে তাকালেই মনোমুগ্ধকর দৃশ্য লাল কাঁকড়ার বহর দেখা যাবে। দেখলে মনে হবে যেন লাল চাদর বিছিয়ে রাখা হয়েছে। বিশেষ করে শিশুদের কাছে এ দৃশ্য যে কতো আনন্দদায়ক তা বলে ইতি টানার সক্ষমতা আমার নেই। এ যেন সৃষ্টিকর্তা অদৃশ্য হাতে ঢেলে সাজিয়েছেন।

এ ছাড়া জাহাজমারার কাছাকাছি রয়েছে চরতুফানিয়া, চরতাপসী ও সোনার চর। তাই সরকারের সুদৃষ্টি মিললে অপার সম্ভাবনাময় স্থানটি বাণিজ্যিক পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা যেতে পারে বলে মনে করছে স্থানীয়রা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

One thought on "জাহাজমারা সমুদ্র সৈকত"

  1. মোঃ কাওসার হোসেন says:

    ধন ধান্য পুষ্প ভরা, আমাদের এই
    বসুন্ধরা,
    তাহার মাঝে আছে দেশ এক সকল
    দেশের সেরা,
    ওসে স্বপ্ন দিয়ে তৈরী সেদেশ
    স্মৃতি দিয়ে ঘেরা।
    এমন দেশটি কোথাও
    খুঁজে পাবে নাকো তুমি,
    সকল দেশের রানী সেযে আমার
    জন্মভূমি,
    সেযে আমার জন্মভূমি,
    সেযে আমার জন্মভূমি, বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

নিউজ ক্যাটাগরি

UDOY ADD
©দৈনিক বাংলার ঐতিহ্য (2019-2020)
Theme Customized BY LatestNews