1. news@www.banglaroitizzo.com : BanglarOitizzo :
  2. imrankhanbsl01@gmail.com : Imran Khan : Imran Khan
  3. banglaroitizzo.news@gmail.com : newseditor :
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
নলছিটিতে সেচ্ছেসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ফ্রি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিক নিবন্ধন সেবা নওগাঁয় জেলা রোভারের আয়োজনে গ্রুপ সভাপতি ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত। বরিশালে অসহায় মানুষের মাঝে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন লাভ ফর ফ্রেন্ডসের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরন সম্পন্ন রাজাপুরে দুই বছরেও পুর্নঃ নির্মান হয়নি ভাঙ্গা কালভার্ট, দুর্ভোগ এলাকাবাসীর অসুস্থ মাহিদ ভূঁইয়াকে দেখতে হাসপাতালে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতারা “ঘরের বাইরে গেলে বদ্দা মাস্ক পরিও, নাকে মুখে হনকিয়ায় হাত ন দিও” স্লোগান নিয়ে রোভারদের মাস্ক বিতরণ জমি বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-৩ কালিয়ায় ১৪৪ ধারা অমান্য করে বিরোধ পূর্ন জমিতে বসত ঘর নির্মাণের চেষ্টা রাজাপুরে আমির হোসেন আমু এমপির মাতার ৪৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মোনাজাত শাজাহানপুরে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করায় ম্যানেজার আটক

বরিশালে গীর্জামহল্লায় ফুটপাত দখল করে অবৈধ স্থাপনা, ভোগান্তিতে পথচারীরা

বরিশাল অফিস
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২০ জুন, ২০২১
  • ৯৩১ বার পড়া হয়েছে
বরিশালে গীর্জামহল্লায় ফুটপাত দখল করে অবৈধ স্থাপনা, ভোগান্তিতে পথচারীরা
ফুটপাতে অবৈধ স্থাপনা

বস্তুত পক্ষে দেখে বোঝার উপায় নেই, এটি রাস্তা নাকি ব্যবসাকেন্দ্র। হাঁটার জায়গাজুড়ে পণ্যসামগ্রীর পসরা আর হকারদের ব্যস্ততা। পথচারীরা ফুটপাতে জায়গা না পেয়ে রাস্তায় হাঁটবেন, সেখানেও একই অবস্থা। রাস্তা দখল করে গাড়ি পার্কিং আর হকারদের ব্যবসা। এমনকি সরকারি অনেক গুরুত্বপূর্ণ অফিসের পথও রুদ্ধ হয়ে গেছে ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়িদের প্রতিষ্ঠানের কারণে। এই হলো বরিশাল নগরীর গীর্জা মহল্লার সামনে থেকে লঞ্চঘাট পর্যন্ত এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানের ফুটপাতের অবস্থা। ছোট ছোট দোকান, ব্যবসাসামগ্রী আর হকারদের ঠেলে গন্তব্যে পৌঁছাতে প্রতিদিনই হয়রানি পোহাচ্ছেন পথচারীরা। একদিকে ফুটপাত দখল, অন্যদিকে রাস্তায়ও ঠিকভাবে হাঁটার অবস্থা নেই। ফুটপাত থেকে নামতেই রাস্তার পাশজুড়ে সারি সারি ব্যাটারিচালিত রিকশা, সাইকেল আর মোটরসাইকেলের ভিড়। তখন বিড়ম্বনা আরও বাড়ছে। নগরীর গির্জা মহল্লার সামনে অবৈধ স্থাপনার কারনে প্রতিনিয়ত পথচারী-হকারদের মাঝে বাক বিতন্ডা লেগেই রয়েছে । যদিও ফুটপাতের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কোন কার্যক্রম সম্প্রতি পরিলক্ষিত হয়নি।

নগরীর গীর্জামহল্লায় ফুটপাত দখল করে সম্রাট নামের এক যুবক নিজেকে কখনও সাংবাদিক আবার কখনও স্থানীয় প্রভাবশালী নেতা হিসেবে জাহির করে জোরযবর দস্তি করে ফুটপাত ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করে নিজেই ফ্লাক্সিলোড ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। এছাড়াও বরিশালের বেশ কয়েকটি প্রাণকেন্দ্রে নিজের অসাধু ক্ষমতার দাপট বলে ফ্লাক্সিলোডসহ ফুটপাতে অবৈধ ব্যবসা পরিচালনা করে মাসয়ারা আদায় করছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ফুটপাতের পোশাক ব্যবসায়ী জানান, আমি কিছুদিন পূর্বে গীর্জামহল্লায় আমার ভ্যানগাড়ীতে পোষাক নিয়ে বিক্রয়করার জন্য গিয়েছিলাম। হঠাৎ করেই “এই তুই দোকান বসাইতে আইছো কার অনুমতিতে” আমি ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে নাম জানতে চাইলে সম্রাট বলে পরিচয় দেয়। পাশাপাশি এখানে আমাকে ব্যবসা করতে হলে তাকে ১০,০০০ টাকা মাসে চাঁদা দিতে হবে বলে এও জানিয়ে দেয়। আমি অপরগতা প্রকাশ করলে আমাকে লাঞ্ছিত করে তাড়িয়ে দেয়। এদিকে গীর্জামহল্লায় রাস্তা দখল করে ফ্লাক্সিলোডের ব্যবসা এতই যে বিভিন্ন সময় পথচারীদের চলাচলে বেশ প্রতিবন্দকতা সৃষ্টি করে। এতে পথচারীদের সাথে ওই লোড ব্যবসায়ীদের বাকবিতন্ডা যেন নিত্য নৈমত্তিক বিষয়। এছাড়াও মোটরবাইক চালকরা নির্দিষ্ট স্থানে পার্কিং করতে গেলেও ফ্লাক্সিলোডের ব্যবসায়ীদের অবৈধ স্থাপনার সামনে পড়লে তাদের তোপের মুখে পড়তে হয়। কখনও কখনও মারধর লাঞ্ছিতের ঘটনাও ঘটে থাকে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, গীর্জা মহল্লা এলাকায় সদর রোড হতে লঞ্চঘাট পর্যন্ত সারি সারি ভ্যান গাড়ি যেখানে বসে হকাররা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করেছে। রয়েছে ফ্লাক্সিলোড সহ রাস্তা দখল করে মোটরসাইকেল পার্কিং অবস্থায় । তথাপি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নজরদারী না থাকায় রাস্তাটির অর্ধেক জুড়েই যেন হকারদের দখলে। রাস্তাটি দিয়ে পাশাপাশি দুজনের হাঁটার কোনো সুযোগ নেই। ঠেলাঠেলি করে হাঁটতে হয়। তাছাড়া অবৈধ স্থাপনা এমনভাবে বসানো হয়েছে যাতে করে মানুষ জরুরী সেবার গন্তব্যস্থলে যেতেও বেগ পোহাতে হচ্ছে । রাস্তার পার্শ্বে দোকানিরা ফুটপাতে পণ্যসামগ্রীর পসরা সাজিয়েছেন। একই অবস্থা শহরের গীর্জা মহল্লা, সদর রোড, কাকলির মোড়, পোর্টরোড, রুপাতলী, চৌমাথা, নথুল্লাবাদ, নতুন বাজার ও মোড়কখোলার পুলসহ বিভিন্ন এলাকার। এভাবে নগরের অধিকাংশ ফুটপাত চলে গেছে হকার ও ভাসমান ব্যবসায়ীদের দখলে। এমন পরিস্থিতিতে ওই সব এলাকায় পথচারীরা বাধ্য হয়ে রাস্তা দিয়ে চলাচল করছেন।

এমন বাস্তবতায় একজন হকার নাম প্রকাশ না করার শর্ত দিয়ে বলেন, ‘মানুষ চলাচলে ফুটপাতে অসুবিধা হওয়ায় রাস্তায় নেমে এসেছি। অনেক বছর ধরেই এভাবে ফুটপাত আর রাস্তায় ব্যবসা করছি। কিন্তু কেউ বাধা দেয় না। তবে মাঝেমধ্যে পুলিশ তুলে দিলেও কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে ফের চলে আসছি। গীর্জামহল্লা দিয়ে চলাচলের এমন ভোগান্তি থেকে পরিত্রান পেতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন পথচারীরাসহ সচেতন নাগরিক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

নিউজ ক্যাটাগরি

UDOY ADD
©দৈনিক বাংলার ঐতিহ্য (2019-2020)
Theme Customized BY LatestNews